Uncategorized

পড়ালেখায় মনোযোগী হওয়ার উপায়

পড়াশোনায় লেগে থাকার উপায়
পড়াশোনায় লেগে থাকার উপায়

আপনি কি আসলেই পরীক্ষায় ভালো করতে চান, কিন্তু আপনি একটু অলস?

আপনি কি আপনার পরীক্ষার আগের সময় নিয়ে চিন্তিত হওয়া সত্ত্বেও পড়াশোনা করতে পারছেন না? অতঃপর, পরীক্ষার আগে কোন কিছু না বুঝে শুধুমাত্র মুখস্থ করে পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করছেন?

যদি এমন হয় তাহলে বুঝতে হবে আপনার পড়াশোনার জন্য একটি ভালো স্টাডি  সিডিউল তৈরি করা এবং আপনার পড়াশুনার ধরনে বেশকিছু প্রয়োজনীয় পরিবর্তন আনতে হবে।

 পড়াশোনায় নিয়মিত হতে নিচের পদ্ধতি গুলো বিশেষভাবে কার্যকরঃ

 প্রথম অংশ 

 স্টাডি সিডিউল তৈরি করাঃ

How to stick to study
স্টাডি সিডিউল তৈরি করা
  • লক্ষ্য নিয়ে ভাবনাঃ

নিজেকে প্রশ্ন  করুন যে কেন আমার স্টাডি  সিডিউল তৈরি করা দরকার?  আমার ফলাফল কেমন হওয়া উচিত? একটা স্টাডি সিডিউল কি আমার পড়াশোনায় সহায়তা করবে? গুরুত্বপূর্ণ এ প্রশ্নগুলো নিজেকে জিজ্ঞেস করা খুবই জরুরী।প্রশ্নগুলোর উত্তর খুঁজে বের করুন এবং লিখে ফেলুন।

  • সময় নির্ধারণ

 সারাদিন বইয়ের ভেতরে মাথা গুঁজে রাখা দরকার নেই। আপনার প্রয়োজন শুধু পড়াশোনা করার জন্য নির্দিষ্ট একটা সময় বের করা ।আপনি এটা বের করতে পারেন এভাবেঃ

  1.  আপনাকে নিয়মিত ভাবে যে বিষয় গুলো পড়তে হয় সেগুলো সব একটা পাতায় লিখে ফেলুন। প্রত্যেকটি বিষয় একদিনে কি পরিমান পড়বেন এবং সপ্তাহে কতবার পড়বেন তা নির্ধারণ করুন। প্রতিদিন নিয়মিত ভাবে নির্দিষ্ট সময় পড়াশোনা করলে আপনার মস্তিষ্কের কাছে তা বেশি গ্রহণযোগ্য ও সহজবোধ্য মনে হবে।
  •  লক্ষ্যের বাস্তবতা যাচাই

 দিনে ১২ ঘন্টা ১৫ ঘন্টা পড়াশোনা অবশ্যই একটি কঠিন বিষয়। তাই নিজের লক্ষ্য নির্ধারণের ক্ষেত্রে অবশ্যই  খেয়াল রাখবেন যেন বাস্তব সম্মত হয়। আপনি যদি জানেন আপনার লক্ষ্য পূরণে আপনি সক্ষম নন তাহলে, সেই লক্ষ শুধুমাত্র আপনার মানসিক চাপ বৃদ্ধি ব্যতীত কোন কাজে আসবে না।  তাই নিজের লক্ষকে বাস্তবসম্মত এবং নিজের সক্ষমতা সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ হিসেবে নির্ধারণ করুন।

  •  সিডিউল তৈরি

  যথাসম্ভব মোটা কাগজে  সিডিউল তৈরী করুন যাতে বারবার উল্টে না যায়। সিডিউলটি আকর্ষণীয় করে তুলুন। সিডিউল দৃষ্টিনন্দন করতে আপনি বিভিন্ন ধরনের রঙিন কাগজ  এবং স্টিকার ব্যবহার করতে পারেন। আপনার পছন্দের রং ব্যবহার করুন। সর্বোপরি সিডিউল টা এমন ভাবে তৈরি করুন যাতে তা আপনার মনের মত হয়।

  • সিডিউল পর্যবেক্ষণ

 আপনার তৈরি করা সিডিউল দেখে যদি মনে হয় কোন প্রয়োজনীয় পরিবর্তন দরকার তাহলে সেই অনুযায়ী পরিবর্তন করুন অথবা  শিডিউল ঠিক থাকলে সে অনুযায়ী পড়াশোনা শুরু করুন।

 দ্বিতীয় অংশ

   সিডিউলে লেগে থাকাঃ

 সিডিউলে লেগে থাকা
  •   পড়াশোনা শুরু

 নিয়মিতভাবে লেগে থাকা সবচেয়ে ভালো উপায় হচ্ছে পড়াশোনা শুরু করে  দেওয়া।  পড়াশোনার ক্ষেত্রে আপনি অন্যদের সহায়তা নিতে পারেন আপনি কোন ছোট স্টাডি গ্রুপ এ জয়েন করতে পারেন অথবা কোনো টিউটরের সহায়তা নিতে পারেন।

  • প্রক্রাস্টিনেশন বন্ধ করা

 আপনি হয়তো বা পদার্থবিজ্ঞান পড়ছেন তখন আপনার মনে হল ন্যাশনাল জিওগ্রাফি চ্যানেল এ গোল্ড ডিগার এর নতুন এপিসোড শুরু হবে। তখন আপনি কি করবেন? তখন খুব সম্ভবত আপনি নিজেকে বলবেন যে আমি এখন এপিসোড টা দেখি পরে পড়াশোনা করব। অথবা আপনি নিজে নিজে চিন্তা করবেন যে আমি দুইটা কাজ একসাথে করতে পারি। এটা হবে আপনার সবচেয়ে খারাপ সিদ্ধান্ত তাই পড়াশোনার সময় অন্য কোন বিষয় নিয়ে ভাববেন না।

  •  ডিস্ট্রাকশন বন্ধ  করা

 আপনার ফোন বন্ধ করে রুমে রেখে আসুন যাতে পড়াশোনার সময় আপনি চাইলেই ফেসবুকে অথবা ইউটিউবে  না ঢুকতে পারেন। প্রয়োজন না হলে কখনো কম্পিউটার বা কোন ডিজিটাল ডিভাইস এর সামনে পড়তে বসবেন না।

 যদি কম্পিউটারের সামনে পড়াশোনা করতে হয় তাহলে নিজের কাছে প্রতিজ্ঞা করুন  ইউটিউব অথবা ফেসবুকে গিয়ে “খুব পড়তেছি” টাইপের স্ট্যাটাস  দেখে নিজের সময় নষ্ট করবেন না।

  •  নিজেকে পুরস্কৃত করা

মাঝে মাঝে পড়াশোনা শেষ করার পর আপনি নিজেকে নিজে পুরস্কৃত করতে পারেন।যেমন টানা ২ ঘন্টা পড়ার পর আপনি নিজেকে নিজে চকলেট গিফট করতে পারেন।অথবা ছাদে গিয়ে ১০ মিনিট ঘোরাফেরা করে আসতে পারেন অথবা পরীক্ষার আগে যখন খুব বেশি পড়াশোনা করতে হয় তখন পড়াশোনা শেষ করে আপনার পছন্দের খাবার খেতে পারেন।এটা আপনার পড়াশোনার আগ্রহ  বাড়বে।

  • হালকা শারীরিক ব্যায়াম করা

 আমরা সবাই জানি শারীরিক ব্যায়াম আমাদের জন্য কতটা গুরুত্বপূর্ণ। আপনি যদি ফুটবল ক্রিকেট অথবা কোন আউটডোর গেমস  পছন্দ করেন তাহলে মাঠে গিয়ে খেলতে পারেন। মাঠে গিয়ে খেলতে না ভালো লাগলে বাসায়  এক্সারসাইজ করতে পারেন। এতে আপনার শারীরিক স্বাস্থ্যের পাশাপাশি মানসিক স্বাস্থ্যও যথেষ্ট ভালো থাকবে। আর মানসিক সুস্থতা পড়াশোনার জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

এ পদ্ধতি গুলো অনুসরণ করলে আশা করা যায় আপনি আপনার পড়াশোনা নিয়মিত হতে পারবেন এবং আগের চেয়ে ভালো ফলাফল করতে পারবেন

পড়াশোনা এবং চাকরি সংক্রান্ত নতুন তথ্য এবং পরামর্শ পেতে Recruitmentbd এর সাথেই থাকুন ।

Share
Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *